Cricket News

বাতিল হচ্ছে এশিয়া বনাম বিশ্ব একাদশের ম্যাচ!! আয়োজন করা হবে ডিসেম্বরের মধ্যে!

গতবছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে দুটি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ আয়োজন করার পরিকল্পনা করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে এর মধ্যে হানা দেয় করোনাভাইরাস। করোনা বিশ্বব্যাপী ভয়ংকর আকার ধারণ করার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর সকল আয়োজন স্থগিত করতে হয়েছে সরকারকে। এরি পরিপ্রেক্ষিতে পন্ড হয়ে যায় বিসিবির আয়োজন করা এশিয়া একাদশ ও বিশ্ব একাদশের মধ্যকার ম্যাচ দুটি।

পেরিয়ে গেছে একটি বছর। শঙ্কা দেখা দিয়েছিল আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ দুটি অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে। তবে একবছর পরে এ বছর সংক্ষিপ্ত আকারে জন্মশতবর্ষের সকল আয়োজন করেছে বাংলাদেশ সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় এগোচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। এশিয়া বনাম বিশ্ব একাদশের মধ্যকার দুটি ম্যাচ নিয়ে এখনো পর্যন্ত আশা ছাড়ছে না বিসিবি। শঙ্কা উড়িয়ে এই দুই আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ আয়োজন করা নিয়ে আশাবাদী বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর উদযাপনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত। এই কথা মাথায় রেখেই এই সময়ের মধ্যে ম্যাচ আয়োজন করতে চাইবে বিসিবি।

আজ (বুধবার, ১৭ মার্চ) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে বিসিবি বস নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, যেহেতু জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন হয়েছে ডিসেম্বর পর্যন্ত, সেজন্য আমরা আশার আলো দেখছি। হয়তো এটা আবার করা যেতে পারে। এর সাথে এটাও আমাদের মনে রাখতে হবে যে কোভিড সিচুয়েশনে খুব খারাপের দিকে যাচ্ছি আমরা। সেটাও আমাদের চোখ রাখতে হচ্ছে-পরিস্থিতি কোনদিকে যায় না যায়। তবে আমাদের তো ইচ্ছা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই টুর্নামেন্টটা করা।

তবে এ নিয়ে এখনো কোনো পরিকল্পনা করা হয়নি বলেও জানান পাপন। তবে চলছে প্রস্তুতি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এ মুহুর্তে যে আলাপ-আলোচনা শুরু হয়েছে তা না। কিন্তু আমাদের তরফ থেকে একটা প্রস্তুতি নিয়ে যাচ্ছি- কখন কী করা যায়, কাদের সাথে খেলা যায়, কেমন খেলোয়াড় পাওয়া যেতে পারে, কোন সময় তাদের পাওয়া যেতে পারে। এটা হওয়ার পরে আমরা ওদের সাথে যোগাযোগ করব।

আমাদের পরিকল্পনা ছিল এ মাসের মধ্যেই আমরা যোগাযোগ করতে পারব তাদের সাথে, যেহেতু আমাদের কোভিড আক্রান্ত সংখ্যা কমে এসেছিল। কিন্তু এখন যেভাবে বাড়ছে তাতে করে তো একটু শঙ্কিত। অনেক দেশ কিন্তু লকডাউনে চলে গেছে। সামনে কি হবে বলা মুশকিল। সেদিক দিয়ে চিন্তা করে যদি বলেন একটু অনিশ্চয়তা আছেই। তবে এইটুকু আপনাদের নিশ্চিত করতে পারি- যদি কোনো সুযোগ পাই বা প্রথম সুযোগেই আমরা এই খেলাটা আয়োজন করে ফেলব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this:
Enable Notifications    OK No thanks