Cricket News

মুশফিক-মাহমুদুল্লাহর দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে স্বস্তির সংগ্রহ পেয়েছে বাংলাদেশ!!

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে মিরপুর শেরে-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রথম ম্যাচে আজ মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ দল। এই ম্যাচে শুরুতে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশের অধিনায়ক তামিম ইকবাল খান। প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৫৭ রান তুলেছে বাংলাদেশ।

প্রথম ওয়ানডেতে বরাবরের মতোই ওপেনিং নড়বড়ে দেখা গিয়েছে বাংলাদেশ দলের। শুরুতেই লিটন কুমার দাস সাজঘরে ফিরেন কোনো রান না করেই। দলীয় ৫ রানের মাথায় ছামিরার বলে ক্যাচ তুলে আউট হন লিটন। সাকিবকে সাথে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামলানোর চেষ্টা চালান তামিম ইকবাল। শুরুতেই উইকেট হারিয়ে ধীর গতির ব্যাটিং করতে থাকে বাংলাদেশ।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মাঠে ফেরার পর থেকেই ব্যাটিং নিয়ে ধুঁকতে দেখা গেছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। এই ম্যাচেঅ ব্যাট হাতে স্বস্তি দিতে পারেননি সাকিব। দলীয় ৪৩ রানে ৩৪ বলে ২ চারে ১৫ রান করে আউট হয়ে যান সাকিব আল হাসান। সাকিবের উইকেটটি তুলে নেন গুনাথিলাকা। দলীয় ৫০ রানের আগেই দুই উইকেট হারানো বাংলাদেশকে কিছুটা স্বস্তি দেয় তামিম ও মুশফিকুর রহিমের ৫৬ রানের জুটি।

মুশফিকের সাথে জুটি গড়ার সাথে সাথে নিজের ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৫১তম হাফসেঞ্চুরির দেখা পান তামিম। শুধু তাই নয় এই ম্যাচে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ১৪ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল খান।

তবে হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি তামিম। ৭০ বলে ৬ চার ১ ছয়ে ৫২ রান করে আউট হয়েছেন তামিম। তামিমের উইকেটের পর ক্রিজে এসে প্রথম বলেই আউট হয়ে গোল্ডেন ডাকের দেখা পান মোহাম্মদ মিঠুন। দলীয় ৯৯ রানে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার জোড়া আঘাতে পরপর দুই উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশকে এই বিপদ থেকে উদ্ধার করে দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তাদের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে স্বস্তি ফিরে পায় বাংলাদেশ। দুজন মিলে গড়েছেন ১০৯ রানের জুটি। ৪০তম ওয়ানডে হাফসেঞ্চুরি তুলে নেওয়ার পর আগ্রাসী মনোভাবে খেলতে থাকে মুশফিক। শ্রীলঙ্কার জন্য ভয়ংকর হয়ে উঠা মুশফিককে থামান লক্ষন সানদাকান। ৮৭ বলে ৪ চার ১ ছয়ে ৮৪ রানের দূর্দান্ত এক ইনিংস খেলে আউট হন মুশফিক।

আফিফ হোসেনের সাথে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ জুটি গড়েছেন ২২ রানের। নিজের ক্যারিয়ারের ২৪তম হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর আউট হয়ে যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ৭৬ বলে ২ চার ১ ছয়ে ৫৪ রান করে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বলে বোল্ড হয়ে ফিরে যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

শেষের দিকে আফিফ হোসেনের অপরাজিত ২৭ রান ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের অপরাজিত ১৩ রানে ভর করে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৫৭ রানের স্বস্তির সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ।

শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বোচ্ছ তিন উইকেট শিকার করেছেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। এছাড়াও ছামিরা, গুনাথিলাকা ও সানদাকান পেয়েছেন একটি করে করে উইকেট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this:
Enable Notifications    OK No thanks