সাকিব-মাহমুদুল্লাহ দ্বন্দ্বের বিতর্ক নিয়ে ক্ষোভ ঝাড়লেন সাকিব!!

বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়ে বেশ জোরালোভাবে বিতর্ক উঠেছিলো সাইফুদ্দিনকে নিয়ে। বড় দলের বিপক্ষে খেলতে ভয় পায় সাইফুদ্দিন এমন খবর সাড়া ফেলে.

বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়ে বেশ জোরালোভাবে বিতর্ক উঠেছিলো সাইফুদ্দিনকে নিয়ে। বড় দলের বিপক্ষে খেলতে ভয় পায় সাইফুদ্দিন এমন খবর সাড়া ফেলে দিয়েছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলে। অন্যদিকে বিতর্ক উঠেছিলো সাকিব ও মাহমুদুল্লাহর নাকি চলছিলো দ্বন্দ্ব। এজন্য সাকিবকে বিশ্বকাপের দলের পরিকল্পনায় রাখেননি অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এমন খবরও চাউর হচ্ছিলো।

তবে পরবর্তীতে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ একটি ভিডিও বার্তার মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছেন তার এবং সাকিবের দ্বন্দ্বের খবরটি সম্পূর্ণরূপে গুজব। এবার এইসকল ব্যাপার নিয়ে মুখ খুলেছেন বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। এই সকল গুজবে সাকিব যে কতটা অসন্তষ্ট তার কথায় তা বোঝা গেলো।

বাংলাদেশের জনপ্রিয় সংবাদপত্র দৈনিক প্রথম আলোকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এসকল বিতর্কিত গুজব নিয়ে কথা বলেছেন সাকিব আল হাসান। এসব খবর দলের ভেতর থেকেই কেউ ছড়াচ্ছে। যারা এসব খবর ছড়াচ্ছে তাদেরকে ভালো চোখে দেখছেন না সাকিব।

এ ব্যাপারে সাকিব বলেন, এখানে লুকোচুরির কিছুই নেই। যে এই বিষয়টা বলেছে বা সংবাদ করেছে, তিনি কাজটা ঠিক করেননি। বিশ্বকাপের সময় সাইফুদ্দিনকে নিয়ে একটা সংবাদ ছাপা হলো। ও নাকি বড় দলের বিপক্ষে ভয়ে খেলে না। এসব খবর কি দলের জন্য ভালো? দলে যারা আছে তারা জানে এই নিউজ কে করিয়েছে। সাইফুদ্দিন কি খেলেনি? একটা দলকে মানুষিকভাবে ভেঙে দেওয়ার জন্য এইসবই যথেষ্ট।

এসবের জন্য সাংবাদিকদের দোষী করছেন না এমনটা উল্লেখ করে সাকিব বলেন, আমি সাংবাদিকদের দোষ দিচ্ছি না। ভেতর থেকে যে তথ্যটা গেছে সেটা খারাপ। আপনি জানবেন কখন? যখন আমি বলবো, যখন আমাদের কেউ বলবে, তখনই জানবেন। ভেতর থেকে যখন এসব খবর বাইরে যাবে তখন দলের ভালো করার সম্ভাবনা থাকলেও সেটা ওই সময় কমে যাবে। যেটা আমাদের ফলাফলেও প্রভাব ফেলেছে।

সাকিব আরো বলেন, প্রথমত আমি ও রকম কিছু বলিনি। আর যদি বলেও থাকি সেটা যে বাইরে এল তার দায় কে নিবে? আমাদের ভিতরে আলাপ-আলোচনা হতেই পারে। যেখানে বিদেশি কোচদের সাথে এক দুইজনই থাকে যারা দলের নীতিনির্ধারনী বিষয়ে সম্পৃক্ত৷ নিশ্চয় তাদের থেকেই এটা বের হয়েছে। সেটা কে? বিষয়টা খুবই খারাপ। তারা হয় দলের ভালো চায় না অথবা ওই খেলোয়াড়ের ভালো চায় না। দেখুন এতোটুকু তো বুঝি যে দলে আমাদের দেশের যাঁরা ছিলেন, তাদের কাছ থেকেই বের হয়েছে বিষয়টা। বিদেশী কোনো কোচিং স্টাফ সাংবাদিকদের এ কথা বলেছে বলে বিশ্বাস হয় না। কারণ আমি যদি অধিনায়ককে এরকম কথা বলেও থাকি, সেটা তো নিশ্চয়ই বাংলায় বলব।

এমন অবস্থায় যে দল বিশ্বকাপে ভালো করবে না সেটা সাকিব আগে থেকেই বুঝে গেছেন।

এ ব্যাপারে সাকিবের ভাষ্য, একজন চোটে পড়ায় আরেকজন খেলেছে, তার সামনে যদি আপনি বলেন, ইশ, আজ অমুক থাকলে ভালো হতো, ওই খেলোয়াড় কি জীবনে ভালো খেলবে! এগুলো যখন হয় তখন দলের পক্ষে ভালো কিছু করার সম্ভব হয় না। এই দল যে বিশ্বকাপে ভালো কিছু করবে না, আমি সেই দিনই বুঝে গেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: