মেসিকে ছেড়ে না দিলে জেলে যেতে হবে বার্সেলোনাকে!

২১ বছর বয়সী ম্যালকম হঠাৎ করেই ফুটবল দুনিয়ায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রুপ নিয়েছেন। তার জন্যই শত্রুতে পরিণত হয়েছে স্প্যানিশ সুপারজায়ান্ট বার্সেলোনা.

২১ বছর বয়সী ম্যালকম হঠাৎ করেই ফুটবল দুনিয়ায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রুপ নিয়েছেন। তার জন্যই শত্রুতে পরিণত হয়েছে স্প্যানিশ সুপারজায়ান্ট বার্সেলোনা ও ইতালিয়ান জনপ্রিয় ক্লাব রোমা। শেষ মুহূর্তে এই ব্রাজিলিয়ানকে রীতিমতো ডাকাতি করে নেওয়াটা পছন্দ করেনি ইতালিয়ান ক্লাবটির প্রেসিডেন্ট। আইনি লড়াইয়ে যাওয়ার চূড়ান্ত হুমকিও দিয়েছেন তারা। অবশ্য মালকমেত পরিবর্তে আর্জেন্টাইন সুপার স্টার লিওনেল মেসিকে দিলেই ক্ষমা পাবে বার্সা– জানিয়ে দিলেন রোমার প্রেসিডেন্ট জেমস পালোত্তা।

এদিলে ২দিন আগে রোমা বার্সেলোনার বিরুদ্ধে আইনি লড়াইয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন রোমার স্পোর্টিং ডিরেক্টর মঞ্চি। যে ঘটনার পরপরই বার্সেলোনা ইতালিয়ান ক্লাবটির কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করেছে বলে জানায় রোমা কর্তৃপক্ষ। কিন্তু ক্ষমার ব্যাপারে খুবই কঠোর রোমার প্রেসিডেন্ট, কারন ব্রাজিলিয়ান তরুন এই খেলোয়াড়কে দলে না নিতে পারা কত বড় একটি সম্ভবনা হারানো তা তিনি ভালো মতই জানেন। এজন্য মেসিকে দিলেই ক্ষমা করবেন বলে জানান তিনি, ‘বার্সেলোনা আমাদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করেছে। আমি তাদের ক্ষমা করছি না। যদি মেসিকে আমাদের ক্লাবে দিয়ে দেয় এটাই হবে ক্ষমা গ্রহণ করার নূন্যতম উপায়।’

ম্যালকমকে এক প্রকার কিনেই ফেলেছিল রোমা, যা সেখানে সবাই জেনে আনন্দিতও ছিল। বোর্দোক্স রত সঙ্গে লেনদেন সংক্রান্ত কথা বার্তাও চূড়ান্ত হয়ে যায় রোমার। এমনকি রোববার রাত ৯টার ফ্লাইটে ফ্রান্স থেকে ইতালির বিমানের টিকেটও কাটা হয় ম্যালকমের জন্য। ৩২ মিলিয়ন পাউন্ডে প্রথমে বোর্দোক্সের সঙ্গে কথা বার্তা চূড়ান্ত হলেও শেষ মুহুর্তে বার্সেলোনা বেশি অফার করায় ৩৬ মিলিয়ন পাউন্ড পর্যন্ত বিড করেছিল ইতালিয়ান এই ক্লাবটি।

কিন্তু সবাইকে অবাক করে, রোমায় যোগ দেওয়ার ঠিক আগ মুহুর্তে বার্সা এবং বোর্দোক্স নিয়ম ভঙ্গ করে রোমার সাথে করা মৌখিক চুক্তির বিপরীতে ৪১ মিলিয়ন ইউরোতে ম্যালকমকে বেচে দেওয়া হয় বার্সেলোনার কাছে। অথচ ওই দিনের আগে ম্যালকমকে কেনার ব্যাপারে তাদের কোন আগ্রহই ছিল না কাতালান ক্লাবটির। সব মিলিয়ে রোমার ক্ষেপে উঠার যথেষ্ট কারন আছে।

স্পোর্টিং ডিরেক্টরের একই সুর ধরে আইনি ব্যাবস্থা নেওয়ার হুমকি দিলেন ক্লাব প্রেসিডেন্ট তিনি বলেন, ‘চুক্তিটি হয়ে গিয়েছিল। ছেলেটি বিমানে ওঠার পথেও ছিল। কিন্তু তাকে বিমানে উঠতে দেওয়া হয়নি। বোর্দোক্স ও এটার জন্য দায়ী। আমরা কারণ খুঁজতে গিয়ে জানতে পারি বার্সেলোনা এই চুক্তিতে বড় ধরনের ঝামেলা করেছে। আমরা এখন আইনি লড়াইয়ে যাব।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: