১১ দফা দাবিতে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে ক্রিকেটাররা! বিসিবিকে কঠোর হুশিয়ারি!

হঠাৎ বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ধর্মঘট! হ্যাঁ, শুনতে অবাক লাগলেও এই ঘটনাই ঘটেছে আজ। মিরপুর একাডেমি মাঠে আজ উপস্থিত ছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট.

হঠাৎ বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ধর্মঘট! হ্যাঁ, শুনতে অবাক লাগলেও এই ঘটনাই ঘটেছে আজ। মিরপুর একাডেমি মাঠে আজ উপস্থিত ছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রায় সব পরিচিত মুখ। ক্রিকেটারদের এই ধর্মঘটে জানানো হয় বেশ কিছু দাবি-দাওয়া। বিসিবির কাছে ১১ দফা দাবির উদ্দেশ্যেই মূলত এই ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে ক্রিকেটাররা। দাবি না মানা পর্যন্ত সব ধরনের ক্রিকেট বর্জনের ঘোষণাও দিয়েছে ক্রিকেটাররা।

মিরপুর একাডেমি মাঠে আজ (২১ অক্টোবর) সংবাদ সম্মেলন করে এই ১১ দফা দাবি জানায় সাকিবরা৷ অনেকদিনের জমে থাকা ক্ষোভ, কষ্ট দাবির মাধ্যমে তুলে ধরেছেন সাকিবরা।

প্রথম দাবি জানান নাঈম ইসলাম। ক্রিকেটারদের উন্নয়ন সংস্থা কোয়াব সম্পর্কে। নাঈম ইসলাম বলেন, কোয়াবের বর্তমান সদস্যদের পদত্যাগ করতে হবে। এর দায়িত্বভার থাকবে ক্রিকেটারদের উপর। এরপরের দাবি উপস্থাপন করেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তার দাবি, প্রিমিয়ার লিগ আগের নিয়মে হতে হবে। খেলোয়াড়দের পারিশ্রমিকের মানদন্ড বেঁধে দেওয়া যাতে না হয়।

জুনায়েদ সিদ্দিক দাবি জানান, বিপিএলের পাওনা টাকা পরিশোধ করতে হবে। তামিম ইকবালের দাবি, শুধু ক্রিকেটারদের নয়, দেশীয় কোচ ও গ্রাউন্ডসম্যানদের যথাযথ সম্মান ও সম্মানী দিতে হবে। মুশফিকের দাবি, ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক বাড়াতে হবে। এছাড়াও ঘরোয়া লিগে বিদেশী ক্রিকেটারদের মানদন্ড বিবেচনায় আনতে হবে।

সাকিবের দাবি, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের বেতন ৫০ শতাংশ বাড়াতে হবে। এছাড়া ঘরোয়া লিগ খেলতে যাওয়ার খরচ হিসেবে ২৫০০ টাকা যথেষ্ট নয়৷ এছাড়াও হোটেল, জিম, সুইমিং পুল এবং বাস এসব বিষয় বিবেচনায় আনতে হবে৷

এক নজরে ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাবিসমূহঃ-

১. কোয়াবের কর্মকর্তাদের অবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে।

২. প্রিমিয়ার লিগ আগের মতো করতে হবে। নিজেদের ডিল করতে দিতে হবে।

৩. এ বছর না হোক, পরের বছর থেকে বিপিএল আগের মত হতে হবে। লোকাল ক্রিকেটারদের দাম বাড়াতে হবে।

৪. প্রথম শ্রেণির ম্যাচ ফি ১ লাখ, বেতন বাড়াতে হবে, বারো মাস কোচ, ফিজিও দিতে হবে, প্রতি বিভাগে প্র্যাক্টিসের ব্যবস্থা করতে হবে।

৫.ভাল মানের বল দিতে হবে, ডিএ ১৫০০ টাকায় কিছুই হয় না, তাই বাড়াতে হবে, ট্রাভেল প্লেন ভাড়া দিতে হবে, হোটেল ভালো দিতে হবে।

৬. চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটারের সংখ্যা ও বেতন বাড়াতে হবে।

৭. দেশি সব স্টাফদের বেতন বাড়াতে হবে, কোচ থেকে গ্রাউন্ডম্যান, আম্পায়ার সবার বেতন বাড়াতে হবে।

৮. ঘরোয়া ওয়ানডে বাড়াতে হবে, বিপিএলের আগে আরেকটি টি-২০ খেলতে চাই।

৯.ঘরোয়া ক্যালেন্ডার ফিক্সড হতে হবে।

১০. বিপিএল ও ডিপিএলের পাওনা টাকা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে।

১১. ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ দুটোর বেশি খেলা যাবে না এই নিয়ম তুলে দিতে হবে, সুযোগ থাকলে সবাই খেলবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: