বাংলাদেশকে নিয়ে ডুবা হলো না আফগানিস্তানের!!!

সেমিফাইনালের আশা টিকিয়ে রাখার ম্যাচে আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ দল। টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় আফগান অধিনায়ক গুলাবাদিন.

সেমিফাইনালের আশা টিকিয়ে রাখার ম্যাচে আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ দল। টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় আফগান অধিনায়ক গুলাবাদিন নায়েব।

ব্যাটিংয়ে নেমে দূর্দান্তভাবে খেলে যাচ্ছিলেন বাংলাদেশের ওপেনিংয়ে নামা তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। কিন্তু দলীয় ২৩ রানের সময় বিতর্কিত ক্যাচের মাধ্যমে আউট হয়ে যান লিটন। ১৭ বলে ১৬ রান করে আউট হন লিটন। লিটনের আউটের পর তামিমের সাথে জুটি বাঁধেন সাকিব আল হাসান। সাকিব স্পর্শ করেন চলতি বিশ্বকাপে ব্যক্তিগত ১০০০ রানের মাইলফলক। এছাড়াও অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নারকে হটিয়ে চলতি বিশ্বকাপে সর্বোচ্ছ রানের মালিক আবারো সাকিব। কিন্তু সাকিব – তামিমের জুটি বেশি লম্বা হতে পারলো না। দলীয় ৮২ রানের সময় আউট হয়ে যান তামিম ইকবাল। ৫৩ বলে ৩৬ রান করে মোহাম্মদ নবির বলে বোল্ড আউট হয়ে ফিরে যান তামিম। এরপরে চলতি বিশ্বকাপে নিজের ৩য় অর্ধশতক তুলে নেন সাকিব।

দলীয় ১৪৩ রানে এলবিডব্লুয়ের ফাঁদে পড়ে আউট হয়ে যান সাকিব। মুজিব-উর-রহমান তুলে নেন তার উইকেটটি। ৬৯ বলে ৫১ রানের একটি দূর্দান্ত ইনিংস খেলেন সাকিব। ১টি চার মারেন তিনি। এরপরেই একি ফাঁদে পড়েন সৌম্য সরকার। মুজিব-উর-রহমান তুলে নিলেন সৌম্যের উইকেটটি। ১০ বলে ৩ রান করে ফিরে যান সৌম্য সরকার৷ পরপর দুই উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ। এরপর মাহমুদুল্লাহ ও মুশফিক ধরেন স্বস্তির জুটি। মুশফিক তুলে নিলেন তার অর্ধশতক। দলীয় ২০৭ রানের সময় গুলবাদিন নায়েবের বলে ক্যাচ আউট হয়ে যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ৩৮ বলে ২৭ রান করে ফিরে যান মাহমুদুল্লাহ।

এরপরে জুটি বাঁধেন মুশফিকুর রহিম ও মোসাদ্দেক হোসেন। দলীয় ২৫১ রানের সময় আউট হন মুশফিক। ৮৭ বলে ৮৩ রানের অসাধারণ একটি ইনিংস খেলে আউট হন মুশফিক। চারটি চার এবং একটি ছক্কা হাঁকান তিনি। এরপরে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন মিলে বাংলাদেশের দলীয় সংগ্রহ দাঁড় করায় ৫০ ওভারে ২৬২ রান ৭ উইকেট হারিয়ে। ইনিংসের শেষ বলে নায়েবের বলে আউট হয়ে যান মোসাদ্দেক। ২৪ বলে ৩৫ রান করেন মোসাদ্দেক। মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন করেন অপরাজিত ২ বলে ২ রান।

আফগানিস্তানের হয়ে মুজিব – উর – রহমান তুলে নেন ৩ টি উইকেট এবং গুলাবাদিন নায়েব তুলে নেন ২ টি উইকেট। মোহাম্মদ নবি ও ডওলাত জাদরান ১ টি করে উইকেট তুলে নেন।

২৬৩ রানের টার্গেটে ব্যাটিং করতে নেমে বাংলাদেশের জন্য বিপদ হয়ে দাঁড়ায় গুলবাদিন নায়েব ও রহমত শাহ। ওপেনিংয়ে নেমে দুইজনই বাঁধেন জুটি। দলীয় ৪৯ রানের সময় বোলিংয়ে সাকিব এসে রহমত শাহকে সাঝঘরে ফিরান এবং দলকে ব্রেক থ্রু এনে দেন। রহমত শাহ ফিরে যান ৩৫ বলে ২৪ রান করে। রহমতের উইকেটের পর চাপে পড়ে আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানরা। এদিকে গুলবাদিন নায়েব ছিলেন অপ্রতিরোধ্য এগোচ্ছিল্লেন তার অর্ধশতকের দিকে। আফগানিস্তানের দলীয় ৭৯ রানে হাশমোতুল্লাহ শাহিদির উইকেট তুলে নেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। স্টাম্পিং হয়ে ফিরে যান শাহিদি। এরপর নায়েব ও আসগার স্টানিকজাই জুটি গড়ার চেস্টা চালান। কিন্তু এগোতে পারলেন না বেশীদূর। দলীয় ১০৪ রানের সময় গুলবাদিন নায়েবের উইকেট তুলে নিয়ে বিশ্বকাপ ইতিহাসে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ৩০ টি উইকেট ও ১০০০ রানের কীর্তি গড়লেন সাকিব আল হাসান। ৭৫ বলে ৪৭ রান করে ফিরে যান নায়েব। একি ওভারে মোহাম্মদ নবিকে বোল্ড আউট করে দেন সাকিব আল হাসান। নবি ফিরে যান ২ বলে ০ রান করে।

এরপরে দলীয় ১১৭ রানের সময় আসগার স্টানিকজাইয়ের উইকেট তুলে নেন সাকিব আল হাসান। ৩৮ বলে ২০ রান করে ফিরে যান আসগার। একের পর এক উইকেট হারিয়ে প্রায় ধোঁয়াশা ছেয়ে গেছে আফগানিস্তানের ব্যাটিংয়ে। দলীয় ১৩২ রানের সময় লিটন দাসের থ্রো তে রান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নের পথে হাঁটেন ইকরাম আলি খিল। নজিবুল্লাহ জাদরান ও শিনওয়ারি জুটি বাঁধেন। কিছুটা অসুবিধা সৃষ্টি হয় বাংলাদেশের জন্য। তবে দলীয় ১৮৮ রানের সময় জাদরানকে সাঝঘরে ফিরান সাকিব আল হাসান। এর মাধ্যমে বিশ্বকাপ ইতিহাসে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে এক ম্যাচে ৫ টি উইকেট তুলে নেওয়ার কীর্তিও গড়লেন সাকিব। এরপর রশিদ ও দওলাত জাদরানের উইকেট তুলে নেন মোস্তাফিজুর রহমান। আফগানিস্তানের দলীয় ২০০ রানের মুজিব-উর-রহমানকে বোল্ড আউট করে দেয় মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ তুলে নেয় ৬২ রানের বিশাল জয়।

বাংলাদেশের হয়ে সাকিব আল হাসান তুলে নিয়েছেন ৫ টি উইকেট এবং মোস্তাফিজুর রহমান ২ টি উইকেট তুলে নেন। মোসাদ্দেক হোসেন এবং মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন তুলে নেন ১ টি করে উইকেট।

১০ ওভারে ২৯ রান দিয়ে ১০ টি উইকেট এবং ব্যাট হাতে ৬৯ বলে ৫১ রান করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন সাকিব আল হাসান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: