এনফিল্ডে ম্যানসিটিকে খেলে ছেড়ে দিল লিভারপুল

১৫ বছরের অ্যানফিল্ড ইতিহাস অক্ষুণ্ণ রেখে আরও একবার খালি হাতে ফিরতে হলো ম্যানচেস্টার সিটিকে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে এ ভয়ানক খেলা.

১৫ বছরের অ্যানফিল্ড ইতিহাস অক্ষুণ্ণ রেখে আরও একবার খালি হাতে ফিরতে হলো ম্যানচেস্টার সিটিকে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে এ ভয়ানক খেলা পেপ গুয়ার্দিওলার দলকে প্রথম হারের স্বাদ দিয়েছে লিভারপুল।
রোববার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় শুরু হওয়া ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে সিটিকে ৪-৩গোলে হারিয়েছে ক্লপের শিষ্যরা।



এর ফলে লিগে ম্যানসিটির বিপক্ষে ঘরের মাঠে টানা ১৫ ম্যাচ অপরাজিত রইল লিভারপুল। তাদের মাঠে সেই ২০০৩ সালের পর থেকে আর জিতেতে পারেনি ম্যানচেস্টারের এই ক্লাবটি।

অ্যালেক্স অক্সলেড-চেম্বারলেইনের অসাধারণ নৈপুণ্যে দারুণ সূচনা করে লিভারপুল। অনেক দূর থেকে লং রানে ফের্নানদিনিয়োকে এড়িয়ে ২৫ গজ দূর থেকে জোরালো কোনাকুনি শটে গোল দিয়ে দলকে এগিয়ে দেন ইংলিশ মিডফিল্ডার।

এরপর বেশ কয়েকটি সহজ সুযোগ হারায় ম্যানসিটি। পরে ৪১তম মিনিটে লেরয় সানের গোলে সমতায় ফেরে অতিথিরা। ডান দিক থেকে কাইল ওয়াকারের উঁচু করে বাড়ানো বল বুকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এক জনকে ড্রিবলিং করে কাটিয়ে আরেক জনকে কোনো সুযোগ না দিয়েই শক্তিসম্পন্ন জোরালো শটে গোল পোস্টের লক্ষ্যভেদ করেন জার্মান এই মিডফিল্ডার।

দ্বিতীয়ার্ধের পঞ্চম মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিক ম্যান সিটির। কিন্তু নিকোলাস ওতামেন্দির হেড ক্রসবারে লাগে আর গোল হয়নি।

এর কিছুক্ষণ পর মাত্র নয় মিনিটের মধ্যেই তিনবার বল জালে জড়িয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় এনফিল্ডের ১১জন। ৫৯তম মিনিটে রবের্তো ফিরমিনো, তার দুই মিনিট পর সাদিও মানে আর ৬৮তম মিনিটে মোহাম্মদ সালাহ দারুন তিন গোলে জয় নিশ্চিত হয় লিভারপুলের।

কিন্তু শেষ মুহুর্তে একটা নাটকীয়তার সুযোগ ছিল। ৮৪তম মিনিটে প্রতিপক্ষের পায়ে লেগে আসা বল ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে গোল করেন সিলভা। এরপর অতিরিক্ত সময়ে আগুয়েরোর পাস পেয়ে কাছ থেকে ব্যবধান আরও কমান ইলকাই গিনদোয়ান। অবশ্য শেষ পর্যন্ত ৩-৪ গোলে হারতে হয় ম্যানসিটিকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: