আইসিসি এবং ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের চরম দ্বন্দ্ব!!ভারতকে কঠিন হুমকি আইসিসির!

২০১৬ সালের টি-২০ বিশ্বকাপের সময় আইসিসির প্রায় ৩০ মিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়েছে। আর আইসিসির এই ক্ষতি হয়েছে মূলত ভারতীয় ক্রিকেট.

২০১৬ সালের টি-২০ বিশ্বকাপের সময় আইসিসির প্রায় ৩০ মিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়েছে। আর আইসিসির এই ক্ষতি হয়েছে মূলত ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের জন্য। এই ৩০ মিলিয়ন ডলার ভারতীয় বোর্ডের কাছ থেকে পায়নি আইসিসি। তাই কর নিয়ে লেগেছে আইসিসি এবং বিসিসিআইয়ের মধ্যে একপ্রকার কাড়াকাড়ি।

আইসিসিও এই টাকা ছাড়তে নারাজ এবং বিসিসিআই বানাচ্ছে নানা তালবাহানা। তাই ক্রিকেটের সর্বোচ্ছ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা আইসিসি এবার নিতে যাচ্ছে এক কঠোর সিদ্ধান্ত ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের বিরুদ্ধে। আইসিসি মূলত এই ক্ষতিপূরণ মিটাতে চাইছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের রাজস্ব আয় থেকে নির্দিষ্ট একটা অঙ্ক কেটে নেওয়ার মাধ্যমে।

সাধারণত একটি দেশে কোনো টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হলে সেই টুর্নামেন্টের স্বার্থে প্রায় সব আর্থিক লেনদেন কর মাফ করে দেয় দেশটির সরকার। কিন্তু ২০১৬ সালের অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপের সময় এমনটা করেনি ভারতীয় সরকার৷ এজন্য ক্ষতির মাশুল গুনতে হয়েছিলো আইসিসিকে।

এ নিয়ে বেশ কয়েকমাস ধরেই আইসিসির সঙ্গে বিসিসিআইয়ের দ্বন্দ্ব লেগেই আছে। এবার সেই ক্ষতিপূরণ আদায়ের জন্য ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডকে হুমকি দিলো আইসিসি!

করমুক্তি না দিলে ২০১৯ সালের টি-২০ বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ সালের বিশ্বকাপ থেকে ভারতকে সরিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে আইসিসি।

আইসিসির এমন সিদ্ধান্তে চটেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডও। এমনকি আইনি লড়াইয়ে যেতেও প্রস্তুত বলে জানিয়েছে বিসিসিআই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিসিসিআইয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিসিসিআইয়ের রাজস্ব থেকে প্রায় ৪০.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার কেটে নিতে পারে আইসিসি। যা ভারতীয় বোর্ডের রাজস্ব আয়ের দশ শতাংশ। বর্তমান কর আইন পরিবর্তন করার ক্ষমতা বিসিসিআইয়ের নেই। তবে আমরা এই ব্যাপারে আইসিসিকে অবগত করেছি। আমরা তো আর দেশের আইন অমান্য করতে পারি না। আইসিসির চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহারের এটা বেশ ভালোভাবেই বোঝা উচিত। কারণ তিনি নিজেও একসময় বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: